Long Poem Pujarini \ পূজারিণী

  • Poet Name : Kazi Nazrul Islam
  • Poem About : Africa, Love,
  • Poem Title : Pujarini
Biography Poems
English      Bengali
Here you will find the Long Poem Pujarini \ পূজারিণী of poet Kazi Nazrul Islam

পূজারিণী

এত দিনে অবেলায়- 
প্রিয়তম! 
ধূলি-অন্ধ ঘূর্ণি সম 
দিবাযামী 
যবে আমি 
নেচে ফিরি র”ধিরাক্ত মরণ-খেলায়- 
এ দিনে অ-বেলায় 
জানিলাম, আমি তোমা’ জন্মে জন্মে চিনি। 
পূজারিণী! 
ঐ কন্ঠ, ও-কপোত- কাঁদানো রাগিণী, 
ঐ আখি, ঐ মুখ, 
ঐ ভুর”, ললাট, চিবুক, 
ঐ তব অপরূপ রূপ, 
ঐ তব দোলো-দোলো গতি-নৃত্য দুষ্ট দুল রাজহংসী জিনি’- 
চিনি সব চিনি। 

তাই আমি এতদিনে 
জীবনের আশাহত ক্লান- শুষ্ক বিদগ্ধ পুলিনে 
মূর্ছাতুর সারা প্রাণ ভ’রে 
ডাকি শুকু ডাকি তোমা’ 
প্রিয়তমা! 
ইষ্ট মম জপ-মালা ঐ তব সব চেয়ে মিষ্ট নাম ধ’রে! 
তারি সাথে কাঁদি আমি- 
ছিন্ন-কন্ঠে কাঁদি আমি, চিনি তোমা’, চিনি চিনি চিনি, 
বিজয়িনী নহ তুমি-নহ ভিখারিনী, 
তুমি দেবী চির-শুদ্ধ তাপস-কুমারী, তুমি মম চির-পূজারিণী! 
যুগে যুগে এ পাষাণে বাসিয়াছ ভালো, 
আপনারে দাহ করি, মোর বুকে জ্বালায়েছ আলো, 
বারে বারে করিয়াছ তব পূজা-ঋণী। 
চিনি প্রিয়া চিনি তোমা’ জন্মে জন্মে চিনি চিনি চিনি! 
চিনি তোমা’ বারে বারে জীবনের অস–ঘাটে, মরণ-বেলায়, 
তারপর চেনা-শেষে 
তুমি-হারা পরদেশে 
ফেলে যাও একা শুণ্য বিদায়-ভেলায়! 

দিনানে-র প্রানে- বসি’ আঁখি-নীরে তিনি’ 
আপনার মনে আনি তারি দূর-দূরানে-র স্মৃতি- 
মনে পড়ে-বসনে-র শেষ-আশা-ম্লান মৌন মোর আগমনী সেই নিশি, 
যেদিন আমার আঁখি ধন্য হ’ল তব আখি-চাওয়া সনে মিশি। 
তখনো সরল সুখী আমি- ফোটেনি যৌবন মম, 
উন্মুখ বেদনা-মুখী আসি আমি ঊষা-সম 
আধ-ঘুমে আধ-জেগে তখনো কৈশোর, 
জীবনের ফোটো-ফোটো রাঙা নিশি-ভোর, 
বাধা বন্ধ-হারা 
অহেতুক নেচে-চলা ঘূর্ণিবায়ু-পারা 
দুরন- গানের বেগ অফুরন- হাসি 
নিয়ে এনু পথ-ভোলা আমি অতি দূর পরবাসী। 
সাথে তারি 
এনেছিনু গৃহ-হারা বেদনার আঁখি-ভরা বারি। 
এসে রাতে-ভোরে জেগে গেয়েছিনু জাগরণী সুর- 
ঘুম ভেঙে জেগে উঠেছিলে তুমি কাছে এসেছিলে, 
মুখ-পানে চেয়ে মোর সকর”ণ হাসি হেসেছিলে,- 
হাসি হেরে কেঁদেছিনু-‘তুমি কার পোষাপাখী কান-ার বিধুর?’ 
চোখে তব সে কী চাওয়া! মনে হ’ল যেন 
তুমি মোর ঐ কন্ঠ ঐ সুর- 
বিরহের কান্না-ভারাতুর 
বনানী-দুলানো, 
দখিনা সমীরে ডাকা কুসুম-ফোটানো বন-হরিণী-ভুলানো 
আদি জন্মদিন হ’তে চেন তুমি চেন! 
তারপর-অনাদরে বিদায়ের অভিমান-রাঙা 
অশ্র”-ভাঙা-ভাঙা 
ব্যথা-গীত গেয়েছিনু সেই আধ-রাতে, 
বুঝি নাই আমি সেই গান-গাওয়া ছলে 
কারে পেতে চেয়েছিনু চিরশূন্য মম হিয়া-তলে- 
শুধু জানি, কাঁচা-ঘুমে জাগা তব রাগ-অর”ণ-আঁখি-ছায়া 
লেগেছিল মম আঁখি-পাতে। 
আরো দেখেছিনু, ঐ আঁখির পলকে 
বিস্ময়-পুলক-দীপ্তি ঝলকে ঝলকে 
ঝ’লেছিল, গ’লেছিল গাঢ় ঘন বেদানার মায়া,- 
কর”ণায় কেঁপে কেঁপে উঠেছিল বিরহিণী 
অন্ধকার-নিশীথিনী-কায়া। 

তৃষাতুর চোখে মোর বড় যেন লেগেছিল ভালো 
পূজারিণী! আঁখি-দীপ-জ্বালা তব সেই সিগ্ধ সকর”ণ আলো। 

তারপর-গান গাওয়া শেষে 
নাম ধ’রে কাছে বুঝি ডেকেছিনু হেসে। 
অমনি কী গ’র্জে-উঠা র”দ্ধ অভিমানে 
(কেন কে সে জানে) 
দুলি’ উঠেছিল তব ভুর”-বাঁধা সি’র আঁখি-তরী, 
ফুলে উঠেছিল জল, ব্যথা-উৎস-মুখে তাহা ঝরঝর 
প’ড়েছিল ঝরি’! 
একটু আদরে এত অভিমানে ফুলে-ওঠা, এত আঁখি-জল, 
কোথা পেলি ওরে কা’র অনাদৃতা ওরে মোর ভিখারিনী 
বল্‌ মোরে বল্‌ । 
এই ভাঙা বুকে 
ঐ কান্না-রাঙা মুখ থুয়ে লাজ-সুখে 
বল্‌ মোরে বল্‌- 
মোরে হেরি’ কেন এত অভিমান? 
মোর ডাকে কেন এত উথলায় চোখে তব জল? 
অ-চেনা অ-জানা আমি পথের পথিক 
মোরে হেরে জলে পুরে ওঠে কেন এত ঐ বালিকার আঁখি অনিমিখ? 
মোর পানে চেয়ে সবে হাসে, 
বাঁধা-নীড় পুড়ে যায় অভিশপ্ত তপ্ত মোর শ্বাসে; 
মণি ভেবে কত জনে তুলে পরে গলে, 
মণি যবে ফণী হয়ে বিষ-দগ্ধ-মুখে 
দংশে তার বুকে, 
অমনি সে দলে পদতলে! 
বিশ্ব যারে করে ভয় ঘৃণা অবহেলা, 
ভিখরিণী! তারে নিয়ে এ কি তব অকর”ণ খেলা? 
তারে নিয়ে এ কি গূঢ় অভিমান? কোন্‌ অধিকারে 
নাম ধ’রে ডাকটুকু তা’ও হানে বেদনা তোমারে? 
কেউ ভালোবাসে নাই? কেই তোমা’ করেনি আদর? 
জন্ম-ভিখারিনী তুমি? তাই এত চোখে জল, অভিমানী কর”ণা-কাতর! 
নহে তা’ও নহে- 
বুকে থেকে রিক্ত-কন্ঠে কোন্‌ রিক্ত অভিমানী কহে- 
‘নহে তা’ও নহে।’ 
দেখিয়াছি শতজন আসে এই ঘরে, 
কতজন না চাহিতে এসে বুকে করে, 
তবু তব চোখে-মুখে এ অতৃপ্তি, এ কী স্নেহ-ক্ষুধা 
মোরে হেলে উছলায় কেন তব বুক-ছাপা এত প্রীতি সুধা? 
সে রহস্য রাণী! 
কেহ নাহি জানে- 
তুমি নাহি জান- 
আমি নাহি জানি। 
চেনে তা প্রেম, জানে শুধু প্রাণ- 
কোথা হ’তে আসে এত অকারণে প্রাণে প্রাণে বেদনার টান! 

নাহি বুঝিয়াও আমি সেদিন বুঝিনু তাই, হে অপরিচিতা! 
চির-পরিচিতা তুমি, জন্ম জন্ম ধ’রে অনাদৃতা সীতা! 
কানন-কাঁদানো তুমি তাপস-বালিকা 
অনন- কুমারী সতী, তব দেব-পূজার থালিকা 
ভাঙিয়াছি যুগে যুগে, ছিঁড়িয়াছি মালা 
খেলা-ছলে; চিন-মৌনা শাপভ্রষ্টা ওগো দেববালা! 
নীরবে স’য়েছ সবি- 
সহজিয়া! সহজে জেনেছ তুমি, তুমি মোর জয়লক্ষ্মী, আমি তব কবি। 
তারপর-নিশি শেষে পাশে ব’সে শুনেছিনু তব গীত-সুর 
লাজে-আধ-বাধ-বাধ শঙ্কিত বিধুর; 
সুর শুনে হ’ল মনে- ক্ষণে ক্ষণে 
মনে-পড়ে-পড়ে না হারা কন্ঠ যেন 
কেঁদে কেঁদে সাধে, ‘ওগো চেন মোরে জন্মে জন্মে চেন।’ 
মথুরায় গিয়ে শ্যাম, রাধিকার ভুলেছিল যবে, 
মনে লাগে- এই সুর গীত-রবে কেঁদেছিল রাধা, 
অবহেলা-বেঁধা-বুক নিয়ে এ যেন রে অতি-অন-রালে ললিতার কাঁদা 
বন-মাঝে একাকিনী দময়ন-ী ঘুরে ঘুরে ঝুরে, 
ফেলে-যাওয়া নাথে তার ডেকেছিল ক্লান–কন্ঠে এই গীত-সুরে। 
কানে- প’ড়ে মনে 
বনলতা সনে 
বিষাদিনী শকুন-লা কেঁদেছিল এই সুরে বনে সঙ্গোপনে। 
হেম-গিরি-শিরে 
হারা-সতী উমা হ’য়ে ফিরে 
ডেকেছিল ভোলানাথে এমনি সে চেনা কন্ঠে হায়, 
কেঁদেছিল চির-সতী পতি প্রিয়া প্রিয়ে তার পেতে পুনরায়!- 
চিনিলাম বুঝিলাম সবি- 
যৌবন সে জাগিল না, লাগিল না মর্মে তাই গাঢ় হ’য়ে তব মুখ-ছবি। 

তবু তব চেনা কন্ঠ মম কন্ঠ -সুর 
রেখে আমি চ’লে গেনু কবে কোন্‌ পল্লী-পথে দূরে!– 
দু’দিন না যেতে যেতে এ কি সেই পুণ্য গোমতীর কূলে 
প্রথম উঠিল কাঁদি’ অপরূপ ব্যথা-গন্ধ নাভি-পদ্ম-মুলে! 

খুঁজে ফিরি কোথা হ’তে এই ব্যাথা-ভারাতুর মদ-গন্ধ আসে- 
আকাশ বাতাস ধরা কেঁপে কেঁপে ওঠে শুধু মোর তপ্ত ঘন দীর্ঘশ্বাসে। 
কেঁদে ওঠে লতা-পাতা, 
ফুল পাখি নদীজল 
মেঘ বায়ু কাঁদে সবি অবিরল, 
কাঁদে বুকে উগ্রসুখে যৌবন-জ্বালায়-জাগা অতৃপ্ত বিধাতা! 
পোড়া প্রাণ জানিল না কারে চাই, 
চীৎকারিয়া ফেরে তাই-‘কোথা যাই, 
কোথা গেলে ভালোবাসাবাসি পাই? 
হু-হু ক’রে ওঠে প্রাণ, মন করে উদাস-উদাস, 
মনে হয়-এ নিখিল যৌবন-আতুর কোনো প্রেমিকের ব্যথিত হুতাশ! 
চোখ পুরে’ লাল নীল কত রাঙা, আবছায়া ভাসে, আসে-আসে- 
কার বক্ষ টুটে 
মম প্রাণ-পুটে 
কোথা হ’তে কেন এই মৃগ-মদ-গন্ধ-ব্যথা আসে? 
মন-মৃগ ছুটে ফেরে; দিগন-র দুলি’ ওঠে মোর ক্ষিপ্ত হাহাকার-ত্রাসে! 
কস’রী হরিণ-সম 
আমারি নাভির গন্ধ খুঁজে ফেলে গন্ধ-অন্ধ মন-মৃগ মম! 
আপনারই ভালোবাসা 
আপনি পিইয়া চাহে মিটাইতে আপনার আশা! 
অনন- অগস-্য-তৃষাকুল বিশ্ব-মাগা যৌবন আমার 
এক সিন্ধু শুষি’ বিন্দু-সম, মাগে সিন্ধু আর! 
ভগবান! ভগবান! এ কি তৃষ্ণা অনন- অপার! 
কোথা তৃপ্তি? তৃপ্তি কোথা? কোথা মোর তৃষ্ণা-হরা প্রেম-সিন্ধু 
অনাদি পাথার! 
মোর চেয়ে স্বে”ছাচারী দুরন- দুর্বার! 
কোথা গেলে তারে পাই, 
যার লাগি’ এত বড় বিশ্বে মোর নাই শানি- নাই! 
ভাবি আর চলি শুধু, শুধু পথ চলি, 
পথে কত পথ-বালা যায়, 
তারি পাছে হায় অন্ধ-বেগে ধায় 
ভালোবাসা-ক্ষুধাতুর মন, 
পিছু ফিরে কেহ যদি চায়, ‘ভিক্ষা লহ’ ব’লে কেহ আসে দ্বার-পাশে। 
প্রাণ আরো কেঁদে ওঠে তাতে, 
গুমরিয়া ওঠে কাঙালের লজ্জাহীন গুর” বেদনাতে! 
প্রলয়-পয়োধি-নীরে গর্জে-ওঠা হুহুঙ্কার-সম 
বেদনা ও অভিমানে ফুলে’ ফুলে’ দুলে’ ওঠে ধূ-ধূ 
ক্ষোভ-ক্ষিপ্ত প্রাণ-শিখা মম! 
পথ-বালা আসে ভিক্ষা-হাতে, 
লাথি মেরে চুর্ণ করি গর্ব তার ভিক্ষা-পাত্র সাথে। 
কেঁদে তারা ফিরে যায়, ভয়ে কেহ নাহি আসে কাছে; 
‘অনাথপিন্ডদ’-সম 
মহাভিক্ষু প্রাণ মম 
প্রেম-বুদ্ধ লাগি’ হায় দ্বারে দ্বারে মহাভিক্ষা যাচে, 
“ভিক্ষা দাও, পুরবাসি! 
বুদ্ধ লাগি’ ভিক্ষা মাগি, দ্বার হ’তে প্রভু ফিরে যায় উপবাসী!’’ 
কত এল কত গেল ফিরে,- 
কেহ ভয়ে কেহ-বা বিস্ময়ে! 
ভাঙা-বুকে কেহ, 
কেহ অশ্র”-নীরে- 
কত এল কত গেল ফিরে! 
আমি যাচি পূর্ণ সমর্পণ, 
বুঝিতে পারে না তাহা গৃহ-সুখী পুরনারীগণ। 
তারা আসে হেসে; 
শেষে হাসি-শেষে 
কেঁদে তারা ফিরে যায় 
আপনার গৃহ স্নেহ”ছায়ে। 
বলে তারা, “হে পথিক! বল বল তব প্রাণ কোন্‌ ধন মাগে? 
সুরে তব এত কান্না, বুকে তব কা’র লাগি এত ক্ষুধা জাগে? 
কি যে চাই বুঝে না ক’ কেহ, 
কেহ আনে প্রাণ মম কেহ- বা যৌবন ধন, 
কেহ রূপ দেহ। 
গর্বিতা ধনিকা আসে মদমত্তা আপনার ধনে 
আমারে বাঁধিতে চাহে রূপ-ফাঁদে যৌবনের বনে।…. 
সর্ব ব্যর্থ, ফিরে চলে নিরাশায় প্রাণ 
পথে পথে গেয়ে গেয়ে গান- 
“কোথা মোর ভিখারিনী পূজারিণী কই? 
যে বলিবে-‘ভালোবেসে সন্ন্যাসিনী আমি 
ওগো মোর স্বামি! 
রিক্তা আমি, আমি তব গরবিনী,বিজয়িনী নই!” 
মর” মাঝে ছুটে ফিরি বৃথা, 
হু হু ক’রে জ্ব’লে ওঠে তৃষা- 
তারি মাঝে তৃষ্ণা-দগ্ধ প্রাণ 
ক্ষণেকের তরে কবে হারাইল দিশা। 
দূরে কার দেখা গেল হাতছানি যেন- 
ডেকে ডেকে সে-ও কাঁদে- 
‘আমি নাথ তব ভিখারিনী, 
আমি তোমা’ চিনি, 
তুমি মোরে চেন।’ 
বুঝিনু না, ডাকিনীর ডাক এ যে, 
এ যে মিথ্যা মায়া, 
জল নহে, এ যে খল, এ যে ছল মরীচিকা ছাষা! 
‘ভিক্ষা দাও’ ব’লে আমি এনু তার দ্বারে, 
কোথা ভিখারিনী? ওগো এ যে মিথ্যা মায়াবিনী, 
ঘরে ডেকে মারে। 
এ যে ক্রূর নিষাদের ফাঁদ, 
এ যে ছলে জিনে নিতে চাহে ভিখারীর ঝুলির প্রসাদ। 
হ’ল না সে জয়ী, 
আপনার জালে প’ড়ে আপনি মরিল মিথ্যাময়ী। 
কাঁটা-বেঁধা রক্ত মাথা প্রাণ নিয়ে এনু তব পুরে, 
জানি নাই ব্যথাহত আমার ব্যথায় 
তখনো তোমার প্রাণ পুড়ে। 
তবু কেন কতবার মনে যেন হ’ত, 
তব স্নিগ্ধ মদিন পরশ মুছে নিতে পারে মোর 
সব জ্বালা সব দগ্ধ ক্ষত। 
মনে হ’ত প্রাণে তব প্রাণে যেন কাঁদে অহরহ- 
‘হে পথিক! ঐ কাঁটা মোরে দাও, কোথা তব ব্যথা বাজে 
কহ মোরে কহ! 
নীরব গোপন তুমি মৌন তাপসিনী, 
তাই তব চির-মৌন ভাষা 
শুনিয়াও শুনি নাই, বুঝিয়াও বুঝি নাই ঐ ক্ষুদ্র চাপা-বুকে 
কাঁদে কত ভালোবাসা আশা! 
এরি মাঝে কোথা হ’তে ভেসে এল মুক্তধারা মা আমার 
সে ঝড়ের রাতে, 
কোলে তুলে নিল মোরে, শত শত চুমা দিল সিক্ত আঁখি-পাতে। 
কোথা গেল পথ- 
কোথা গেল রথ- 
ডুবে গেল সব শোক-জ্বালা, 
জননীর ভালোবাসা এ ভাঙা দেউলে যেন দুলাইল দেয়ালীর আলা! 
গত কথা গত জন্ম হেন 
হারা-মায়ে পেয়ে আমি ভুলে গেনু যেন। 
গৃহহারা গৃহ পেনু, অতি শান- সুখে 
কত জন্ম পরে আমি প্রাণ ভ’রে ঘুমাইনু মুখ থুয়ে জননীর বুকে। 
শেষ হ’ল পথ-গান গাওয়া, 
ডেকে ডেকে ফিরে গেল হা-হা স্বরে পথসাথী তুফানের হাওয়া। 
আবার আবার বুঝি ভুলিলাম পথ- 
বুঝি কোন্‌ বিজয়িনী-দ্বার প্রানে- আসি’ বাধা পেল পার্থ-পথ-রথ। 
ভুলে গেনু কারে মোর পথে পথ খোঁজা,- 
ভুলে গেনু প্রাণ মোর নিত্যকাল ধ’রে অভিসারী 
মাগে কোন্‌ পূজা, 
ভুলে গেনু যত ব্যথা শোক,- 
নব সুখ-অশ্র”ধারে গ’লে গেল হিয়া, ভিজে গেল অশ্র”হীন চোখ। 
যেন কোন্‌ রূপ-কমলেতে মোর ডুবে গেল আঁখি, 
সুরভিতে মেতে উঠে বুক, 
উলসিয়া বিলসিয়া উথলিল প্রাণে 
এ কী ব্যগ্র উগ্র ব্যথা-সুখ। 
বাঁচিয়া নূতন ক’রে মরিল আবার 
সীধু-লোভী বাণ-বেঁধা পাখী।…. 
…. ভেসে গেল রক্তে মোর মন্দিরের বেদী- 
জাগিল না পাষাণ-প্রতিমা, 
অপমানে দাবানল-সম তেজে 
র”খিয়া উঠিল এইবার যত মোর ব্যথা-অর”নিমা। 
হুঙ্কারিয়া ছুটিলাম বিদ্রোহের রক্ত-অশ্বে চড়ি’ 
বেদনার আদি-হেতু স্রষ্টা পানে মেঘ অভ্রভেদী, 
ধূমধ্বজ প্রলয়ের ধূমকেতু-ধুমে 
হিংসা হোমশিখা জ্বালি’ সৃজিলাম বিভীষিকা স্নেহ-মরা শুষ্ক মর”ভূমে। 
…. এ কি মায়া! তার মাঝে মাঝে 
মনে হ’ত কতদূরে হ’তে, প্রিয় মোর নাম ধ’রে যেন তব বীণা বাজে! 
সে সুদূর গোপন পথের পানে চেয়ে 
হিংসা-রক্ত-আঁখি মোর অশ্র”রাঙা বেদনার রসে যেত ছেয়ে। 
সেই সুর সেই ডাক স্মরি’ স্মরি’ 
ভুলিলাম অতীতের জ্বালা, 
বুঝিলাম তুমি সত্য-তুমি আছে, 
অনাদৃতা তুমি মোর, তুমি মোরে মনে প্রাণে যাচ’, 
একা তুমি বনবালা 
মোর তরে গাঁথিতেছ মালা 
আপনার মনে 
লাজে সঙ্গোপনে। 
জন্ম জন্ম ধ’রে চাওয়া তুমি মোর সেই ভিখারিনী। 
অন-রের অগ্নি-সিন্ধু ফুল হ’য়ে হেসে উঠে কহে- ‘চিনি, চিনি। 
বেঁচে ওঠ্‌ মরা প্রাণ! ডাকে তোরে দূর হ’তে সেই- 
যার তরে এত বড় বিশ্বে তোর সুখ-শানি- নেই!’ 
তারি মাঝে 
কাহার ক্রন্দন-ধ্বনি বাজে? 
কে যেন রে পিছু ডেকে চীৎকারিয়া কয়- 
‘বন্ধু এ যে অবেলায়! হতভাগ্য, এ যে অসময়! 
শুনিনু না মানা, মানিনু না বাধা, 
প্রাণে শুধু ভেসে আসে জন্মন-র হ’তে যেন বিরহিণী ললিতার কাঁদা! 
ছুটে এনু তব পাশে 
উর্ধ্বশ্বাসে, 
মৃত্যু-পথ অগ্নি-রথ কোথা প’ড়ে কাঁদে, রক্ত-কেতু গেল উড়ে পুড়ে, 
তোমার গোপান পূজা বিশ্বের আরাম নিয়া এলো বুক জুড়ে। 

তারপর যা বলিব হারায়েছি আজ তার ভাষা; 
আজ মোর প্রাণ নাই, অশ্র” নাই, নাই শক্তি আশা। 
যা বলিব আজ ইহা গান নহে, ইহা শুধু রক্ত-ঝরা প্রাণ-রাঙা 
অশ্র”-ভাঙা ভাষা। 
ভাবিতেছ, লজ্জাহীন ভিখারীর প্রাণ- 
সে-ও চাহে দেওয়ার সম্মান! 
সত্য প্রিয়া, সত্য ইহা, আমিও তা স্মরি’ 
আজ শুধু হেসে হেসে মরি! 
তবু শুধু এইটুকু জেনে রাখো প্রিয়তমা, দ্বার হ’তে দ্বারান-রে 
ব্যর্থ হ’য়ে ফিরে 
এসেছিনু তব পাশে, জীবনের শেষ চাওয়া চেয়েছিনু তোমা’, 
প্রাণের সকল আশা সব প্রেম ভালোবাসা দিয়া 
তোমারে পূজিয়াছিনু, ওগো মোর বে-দরদী পূজারিণী প্রিয়া! 
ভেবেছিনু, বিশ্ব যারে পারে নাই তুমি নেবে তার ভার হেসে, 
বিশ্ব-বিদ্রোহীরে তুমি করিবে শাসন 
অবহেলে শুধু ভালোবাসে। 
ভেবেছিনু, দুর্বিনীত দুর্জয়ীরে জয়ের গরবে 
তব প্রাণে উদ্ভাসিবে অপরূপ জ্যোতি, তারপর একদিন 
তুমি মোর এ বাহুতে মহাশক্তি সঞ্চারিয়া 
বিদ্রোহীর জয়লক্ষ্মী হবে। 
ছিল আশা, ছিল শক্তি, বিশ্বটারে টেনে 
ছিঁড়ে তব রাঙা পদতলে ছিন্ন রাঙা পদ্মসম পূজা দেব এনে! 
কিন’ হায়! কোথা সেই তুমি? কোথা সেই প্রাণ? 
কোথা সেই নাড়ী-ছেঁড়া প্রাণে প্রাণে টান? 
এ-তুমি আজ সে-তুমি তো নহ; 
আজ হেরি-তুমিও ছলনাময়ী, 
তুমিও হইতে চাও মিথ্যা দিয়া জয়ী! 
কিছু মোরে দিতে চাও, অন্য তরে রাখ কিছু বাকী,- 
দুর্ভাগিনী! দেখে হেসে মরি! কারে তুমি দিতে চাও ফাঁকি? 
মোর বুকে জাগিছেন অহরহ সত্য ভগবান, 
তাঁর দৃষ্টি বড় তীক্ষ্ন, এ দৃষ্টি যাহারে দেখে, 
তন্ন তন্ন ক’রে খুঁজে দেখে তার প্রাণ! 
লোভে আজ তব পূজা কলুষিত, প্রিয়া, 
আজ তারে ভুলাইতে চাহ, 
যারে তুমি পূজেছিলে পূর্ণ মন-প্রাণ সমর্পিয়া। 
তাই আজি ভাবি, কার দোষে- 
অকলঙ্ক তব হৃদি-পুরে 
জ্বলিল এ মরণের আলো কবে প’শে? 
তবু ভাবি, এ কি সত্য? তুমিও ছলনাময়ী? 
যদি তাই হয়, তবে মায়াবিনী অয়ি! 
ওরে দুষ্ট, তাই সত্য হোক। 
জ্বালো তবে ভালো ক’রে জ্বালো মিথ্যালোক। 
আমি তুমি সুর্য চন্দ্র গ্রহ তারা 
সব মিথ্যা হোক; 
জ্বালো ওরে মিথ্যাময়ী, জ্বালো তবে ভালো ক’রে 
জ্বালো মিথ্যালোক। 
তব মুখপানে চেয়ে আজ 
বাজ-সম বাজে মর্মে লাজ; 
তব অনাদর অবহেলা স্মরি’ স্মরি’ 
তারি সাথে স্মরি’ মোর নির্লজ্জতা 
আমি আজ প্রাণে প্রাণে মরি। 
মনে হয়-ডাক ছেড়ে কেঁদে উঠি, ‘মা বসুধা দ্ব

Pujarini

Ato dina o-belay-
Priyotomo!
Dhuli-andho gurni somo
Dibajami
Joba ami
Nacha firi rudhirakto moron-khayal-
Ato dina o-belay-
Janilam, Ami toma Jonma jonma Chini.
Pajarini!

Oi Kontha, o-kopot-kadlo raginy,
Oi akhi, Oi muk,
Oi duru lolat, chibuk,
Oi tobo Aporup rup,
Oi tobo dolo-dolo goti-nitto dristho dul rajhongshi jini-
Chini sob chini.

Tai ami atodina
Jibonar Asahoto klanto susko bidogdho pulina
Murshatur sara pran vora
Daki sudu daki toma,
Priyotoma!
Est mom jop-mala oi tobo sob chaya kisto nam dhora!
Tari satha kadhi ami-
Chinno-kontha kadi ami, chini toma, chini chini chini,
Bijoyani noho tumi-noho vikarini,
Tumi dabi chiro-suddha tapos-kumari, tumi momo chito-pujarini
Juga juga a pasana basiyaso valo,
Apnara daho kori more buka jalayaso alo,
Bara bara koriyaso tobo puja-rini.
Chini priya chini toma Jonma jonma chini chini chini!
Chini toma Barebare jibonar asto-ghata, moron-belai.
Tarpor chana-sas
Tumi hara porodesh
Fala jao aka sunno bidai-valai!
Dinantar pranta bosi akhi-nira titi
Apnar mona ani tari dur-durantar sriti-
Mona pora-bosontar-sas-asa-mlan moino more agomoni sai nisi,
jadin amar akhi dhonno holo tobo akhi-caoya sona misi.
Tokhono sorol sukhi ami-fotani joibon momo
Unmuk badona-mukhi asi ami usha-somo
Ad-guma ad-jaga tokhono koisor,
Jibonar foto-foto rangga nisi vore
Badha-bondo-hara
Ohetuk nacha-chola gurnibahu para
Durunto ganar beg ofuronto hasi
Niya enu pot-volo ami oti dur porobashi.
Satha tari
Enasinu griho-hara badonar akhi-vora bari.
Asa rate-vora jaga gayasinu jagoroni sur-
Ghum vagga jaga uthachila tumi kasa asachila
Muk-pana chaya more sokun hasi hasechila,-
Hasi here kadechinu-tumi kar posapakhi kantar bidhur?
Choka tobo sha ki chaoya! Mona holo jano.
Tumi more oi kontha oi sur-
Birohar kanna varatur
Banani-dulani,
Dokhina somira daka kusum fotano bon-horini-vulano
Adi jonmodin hota chano tumi chano!

Tarpor-onadora bidayar oviman-rangga
Asru-vagga-vagga
Batha-git ghayachinu shai rate,
Buji nai ami sai-gan-gaoya chola
Kara pata chayachinu chirosunno momo hiya-tola-
Sudu jani, kacha-ghuma-jaga tobo rag orun-akhi chaya
Lagachinu momo akhi-pata.
Aro dakhachinu, oi akhir poloka
Bismoi-pulok-dipti joloka joloka        78
Jolachilo, golachilo garo gono badonar maya,-
Korunai kape kape uthachilo birohini
Ondhokar-nisithini-kaya.

Tusatur choka more boro jano lagachilo valo
Pujarini! Akhi-dip-jala tobo sai snigdho sokorun alo.

Tarpor-gan gaoya sas
Nam dhora kasa buji dakachinu hasa!
Omoni ki gorja utha ruddho ovimana
(kano k sha jana)
Duli uthachilo tobo vuru-badha sthir akhi-tori,
Fula uthachilo jol, batha-utsho-mukha taha jhorjhor
Porachilo jhori!

Aktu adora ato ovimana fula-otha, ato akhi jol,
Kotha pali ora kar onadita ora more vikarini
Bol more bol.

Ai vagga buka
Oi kanna-ragga muk thuya laj-sukha
Bol more bol -

More heri kano ato oviman?
More dake kano ato uthlai chokha tobo jol?
O-chena O-jana ami pothar pothik
More here jola pura otha kano tobo oi balikar akhi onimik?
More pana chaya soba hasa,
Badha-ner pura jai ovishapto topto more shasa;
Moni vaba koto jona tula pora gola
Moni joba foni hoya bis-dhogdho mukha,
Dhogsha tar buka,
Omoni sha dola podotola!
Bissho jara kora voi grina obohela
Vikarini! tara niya aki tobo okorun khala?
Tare niya aki gur oviman? Kon odhikare
Name dhora daktuku tao hane bedona tomare?, 
Kau valobasa nai? Tai ato chokha jol, ovimani koruna-kator
Nohe tao nohe -

Buka thaka rikto-kontha kon rikto ovimani kohe -
Nohe tao nohe!
Dakhiyasi sotojon asa ai ghora,
Kotojon na chahita asa buka kora,
Tobu tobo chokha-mukha a otripti, a ki snaho-khuda!
More here uslai kano tobo buk-chapa ato priti-shudha?

Sha rohosso, rani!
Kaho nahi jana -
Tumi nahi jano -
Ami nahi jani.
Chana taha prem, jana, sudu pran -
Kotha hota asa ato okarona prana prana badonar tan!
Nahi bujiyao ami shadin bujinu tai, he oporichita!
Chiro-porichita tumi, jonmo jonmo dhora onadita shita!
Kanon-khadano tumi tapos-balika
Ontotto kumari soti, tobo deb-pujar thalika
Vaggiyasi juga juga, Chiriyasi mala
Khala-chola; chiro-mouna shapvrostha ogo deb-bala!
Niroba Shoyaso sobi -
Sohojiya! Sohoja janoso tumi, tumi more joylokkhi, ami tar kobi.

Tarpor-nishi-sasha pasha bosha sunachinu tobo geet-sur
Laja-ad-bad-bad Songkito budhur
Sur suna holo mona- khona khona -
Mona-pora-pora na a hara kontho jano
Kadha kadha sadha, ogo chan more jonma jonma chano!

Mothurai giya sham, radhikai vulachilo joba,
Mona laga-ai sur ai geet-roba kedhechilo radha,
Obohela-bedha-buka niya a jano ra oti-ontorala lolitar kada
Bon maja ekakini domonti ghura ghura jhora
Fele-jaoya natha tar dekhechilo klanto-kontha ai geet-sura.
Kanta pora mona
Bonolota sona
Bishadini sokuntola kadhechilo ai sura bona shoggopona.
Hem-giri shira
Hara-shoti uma hoya fire
Dhakachilo volanatha amoni sha chana-kontha hai,
Kadhachilo chiro-shoti proti-priya priye tar pete punorai!-
Chinilam bujilam shobi -
Joubon sha jagilo na, lagilo na morma tai garo hoya tobo muk-chobi.

Tobu tobo chana-kontha momo kontho-sur
Rakhe ami chola ginu kora kono polli potha dur.
Du din na jata jata eki sai punno gomtir kula
prothom uthilo kadi oporup batha-gondha navi-podmo-mula!

Khuja firi, khotha hota ai batha-varatur mod-gondho asa -
Akash batash dhora kepe kepe otha sudu more topto gono dirghoshasa!
Kede otha lota-pata
Ful pakhi nodi-jol
Megh bayeu kade sobi obirol,
Kade buka ugroshukha joubon-jalai-jaga otripto bidhata!
Pora pran janilo na kare cai,
Chitkariya fere tai- kotha jai
Kotha gele valobasabasi pai?

Hu-hu kora otha pran mon kora udas-udas,
Mona hoy-a nikhil joubon-atun kono pramikar bathito hutas!
Chok pura lal nil koto ragga, Abochaya vasa, Asa-asa-
Kar bokkho tuta
Momo pran-puta
Kotha hota kano ai mrigno-gondho-batha asa?
Mon-mrigno chuta fire; digontor duli otha more kipto hahakar-trasa!
Kosturi horin-somo
Amari navir gondho khuja fire gondho-ondho mon-mog momo!
Apnaroi valobasa
Apni piya chahe mitaita apnar asa!
Ononto Ogosto-trisha kula bissho maga joubon amar
Ak sindhu sushi bindhu-somo, maga sindhu ar!
Vogoban! vogoban! Eki trisna ononto opar!
Kotha tripti? Tripti kotha? Kotha more trisna hara prem sindhu
Onadi pathar!
More chaya saschachari duronto durbar!
Kotha gale tare pai,
Jar lagi ato boro bissa more nai santi nai!

Vabi ar choli sudu, sudu poth choli
Potha koto poth-bala jai,
Tari pacha hai ondho-baga dhai
Valobasa khudhatur mone
Pichu fira kahu jodi cai- ovimane jole vesa jai du-noyon!
Dekha tara hasa, 
Na chahiya kauo chola jai, vikkha loho bola kauo asa somvar-pasa
Pran aro kadha otha tate
Gumriya otha kaggaler lojjahin guru bedonata!
Proloi-poyodhi-nire gorja-otha huhugkar-somo
Bedona o oviman fula fula dula dula otha dhu-dhu
Khob-kipto pran-shikha momo.
Poth-bala asa vikkha-hata,
Lathi mare churno kori gorbo tar vikkha-patro satha.
Kede tara fira jai, voya kaho nai asa kasa;
Onarthopondit-somo
Mohavikkhu pran momo
Pram-buddho lagi hai somvara somvara mohavikkha sacha,
Vikkha dao purobasi!
Buddho lagi vikkha magi, somvar hota provu fira jai upobasa!'

Koto alo koto galo fire
Keuo voya keuo ba bismoya!
Vagga buka keuo,
Keuo osru-nire -
Koto alo koto galo fire
Ami jachi purno somorpon,
Bujita parana taha griho-shukhi puronarigon.
Tara asa hese
Sese hasi-sese
Kedhe tara fira jai
Apnar griho-snahocai.

Bola tara he pothik! Bolo bolo tobo pran kone dhon maga?
Sura tobo ato kanna, buka tobo kar lagi ato khuda jaga?
Ki ja cai buji na k kehu,
Kehu ana pran momo kehu-ba joubon dhon
kehu rup daho.

Gorbita dhonika asa modmotta apnar dhona,
Amara badhita chaha rup-fada joubonar bona.
Sob bartho fira chola nirashar pran
Potha potha gaya gaya gan -
Kotha more vikarini pujarini koi?
Ja boliba- valobasa sonnasini ami
Ogo more sami.
Rikto ami, ami tobo gorbini, bijoyani noy!
Moru majha chuta fire britha
Hu-hu kora jola otha trisha -
Tari maja trisna-dogdho pran
Khonaker tora koba harail disa
Dura kar dakha galo hatsani jano-
Dake dake shao kade -
Ami nath tobo vikarini,
Ami toma chini,
Tumi more chano.
Bujinu na, dakinir dak a ja,
A ja mitha maya,
Jol nohe, a ja khol, a ja chol morichika chaya!
Vikkha dao bola ami anu tar somvara,
Khotha vikarini? Ogo a ja mitha mayabini
Ghora dake mare.
A ja kor nisader fad,
A ja chola jina nita chahe vikarir jhulir prosad.
Holo na sha joyi,
Apnar jala pora apni morilo mitha mohi.
Kata-bedha rokto makha pran niya enu tobo pura
Jani nai bathahoto amr bathai
Tokhono tomar pran pura.
Tobu kano kotobar mona jano hoto,
Tobo snigdho modir poros mucha nita para more
Sob jala sob dhogdho khoto.
Mona hoto pran tobo prana jano kade ohoroho -
He pothik! Oi kata more dao, Khotha tobo batha baja
Koho more koho!
Nirob gopon tumi mouna taposini,
Tai tobo chiro-mouna vasa
Suniaso suni nai, bujiyao buji nai oi kudro chapa-buka
Kade koto valobasa asa!
Ari majha khotha hota vese alo muktodhara ma amar
Sha jhorar rate,
Khola tula nilo more, soto soto chuma dilo sikto akhi-pata.
Khotha galo poth -
Khotha galo roth -
Duba galo sob shok jala,
Jononir valobasa a vagga daila jano dulail dayalir ala!
Goto-kotha goto jonmo hen
Hara-maye peye ami gula ganu jano.
Griho hara griho panu, oti santo sukha
Koto jonmo pora ami pran vhora ghumainu mukh thuya jononir buka.
Sas holo poth gan gaya,
Deke deke fire galo haha sombora pothsathi tufanar howya.
Abar abar bujhi vulilam poth -
Bujhi kono bijoyini-somvar-pranta asi badha galo partho poth roth
Vula ganu pran more nittokal dhora avisari
Maga kon puja
Vula ganu joto batha shok -
Nobo suk-osrudhara gola galo hiya, vija galo osruhin chok.
Jano kono rup-komlete more duba galo akhi,
Surovita mate otha buk,
Ulsiya bilsiya utlil prana 
A ki bagro ugro batha-suk.
Bachiya notun kora morilo abar
Shadu-lovi ban-bedha pakhi.
Vase galo rokta more mondirar dabi -
Jagilo na pasan protima,
Opomar dabanol-somo teje
Rukhiya uthilo  aibar joto more batha-orunima.
Hugkariya chutilam bidrohar rokto-ossha chori
Badonar adi-hatu srostha pane megh ovrovadi
Dumdoj proloyer dumkatu-dhuma
Hinsa homeshikha jali srijilam bivishikha snaho-mora susko moruvumi

 


....Eki maya! tar maja maja
Mona hoto kotodur hota, priyo more nam dhora jano tobo bina baja!
Sha shudur gopon pothar pana chaya
Hinsha-rokto akhi more osru-ragga badonar rosha jato chaya.
Sai sur sai dak sori sori
Vulilam othitar jala,
Bujilam tumi sotto-tumi aso
Onadita tumi more, tumi more mona prana sacho
Eka tumi bonomala
More tora gathitaso mala
Aponar mona
Laja songgopana.

Jonmo jonmo dhora chaya tumi more sai vikarini.
Ontorar opni-sindhu ful hoya hese utha khohe-chini, chini.
Bacha utha morro pran! dake tora dur hota sai-
Jar tora ato boro bissa tor sukh santi nai!"

Tari majha
Kahar rondon-dhonni baja?

Ke jano ra pisu dake chitkariya koi -
Bondhu a ja obelai! Hotovaggo, a ja osomoy!"
Suninu na mana, maninu na badha,
Prana sudu vese asa jonmantor hota jano birohini lolitar kada
Chuta anu tobo pasa
Urdhosasha,
Mritu-poth opni-roth khotha pora kada, rokto-ketu galo ura pura,
Tomar gopon puja bissar aram niya alo buka jura.

Tarpor ja bolibo hariyesi aj tar vasa;
Ajj more pran nai, osru nai, nai sokti asa.
Ja bolibo ajj eha gan nohe, eha sudu rokto jhora pran-ragga
Osru vagga vasa.
Vabitaso, lojjahin vikarir pran -
Sha-o chahe daiyar sonman!
Sotto priya, sotto eha; amio ta somori
Ajj sudu hese hese mori!
Tobu sudu ai tuku jana rakho priyotoma, somvar hota somvarantora
Bartho hoya firi
Asachinu tobo pasa, jibonar sas chaoya chayacinu toma.

Praner sokol asa sob pram valobasa diya
Tomara pujiyachinu, ogo more ba-dorodi pujarini priya!
Vabesinu bisso jara pare nai tumi nebe tar var hese,
Bissso-bidroher tumi koriba sason
Obohela sudu valobase.
Vabasinu, durbinito durjoyer joyer goroba
Tobo prana udvashiba oporup joti, tarpor akdin
Tumi more a bahuta mohasokti sonchariya
Bidrohir joyolokkhi hoba.

Chilo asa chilo sokti, bissotare tene
Chira tobo ragga podotola chinno ragga poddosomo puja dabo ena!
Kintu hai! Khotha sai tumi? Khotha sai pran?
Khotha-sai niri-chera prana prana chan?

A-tumi ajj sha-tumi to nohe;
Ajj heri-tumio cholonamoyi,
Tumio hota cao mittha diya joyi!
Kisu mora dita cao, onno tora rakho kisu baki -
Durgagini! Dekhe hese mori! kare tumi dita cao faki?
More buka jagisen ohoroho sotto vogoban,
Tar dristi boro tikno, a dristi jahara dakha
Tonno tonno kora khuja dakha tar pran.
Lovi ajj tobo puja kolusito, priya,
Ajj tare vulaita chaho,
Jare tumi pujhachila purno mon-pran somorpiya.

Tai ami vabi kar dhosa -
Oklokkho tobo hidi-pura
Jolil a moronar alo koba posa?
Tobu vabi, a ki sotto? tumio Cholonamoyi?

Jodi tai hoy, toba mayabini ohi!
Ora dustu, tai sotto hok.
Jalo toba valo kora jalo mithalok.
Ami tumi surjo chondro tara.
Sob mitha hok;
Jalo ora mitthamoyi, jalo toba valo kora
Jalo mitthalok.

Tobo mukpana chaya ajj
Baj-somo baja morma laj;
Tobo onador obohela sori' sori'
Nari satha somri more nirlojjota
Ami ajj prana prana mori.

Mona hoy-dak chara kede othi, ma bosudha didha hoy!
Grina hoto mati khana chalara tomar
A nirlojjo muk-dekha alo hota ondhokara tene lao!
Tobu bara bara asi asa poth bahi'.
Kintu hai, jokhonoi o-muk pane chahi -
Mona hoy- hai, khotha sha pujarini,
Khotha sai rikta sonnasini?
A ja sai chiro-porichito obohela,
A ja sai chiro-voyavoho muk!
Purna noy, a ja sai pran niya faki -
Opomana fete jai buk!
Purna noy a ki nidarun khala khele ara hai,
Rokto-jhora ragga buk dola olonthok pora ara pai!

Ara dabi, ara lovi, ara chaha sorbojon-priti!
Ehader tora noha Premiker purno puja, pujarir purno somorpon,
Puja heri ehader viru buke tai jage ato sotto-viti.
Nari nahi hota cai sudu aka karo
Ara dabi, ara lovi, joto puja pai ara cai toto aro.
Ehader otilovi mon
Ak jona tripto noy, ak paya sukhi noy,
Jacha bohujon.
Ja-puja pujini ami srostha vogobana,
Jara dinu sai puja sa-i aji protarona hana!

Bujiyasi, sasbar ghira asa sathi more mritu-gono akhi,
Rikto pran tikto sukha hugkariya otha tai,
Kar tora ora mon, ar kano potha potha kadi?
Jola otho aibar mohakal voirobar natrojala somo dhok-dhok
Hahakar-korotali baja! jalator bidroher rokto shikha onontho pabok!
An tore bohi-roth, baja tore sorbonasha turi!
Han tor porsu-trisul! dhogsho koro ai mithapuri.
Rokto-sudha-bish un moroner dhor tipa thupi!
A mitha jogot tor ovisopto jogondol chapa hok kuthi kuthi!
Kontha ajj ato bis, ato jala
Tobu bala,
Thaka thaka mona pora -
Jotodin basini tomara ami valo,
Jotodin dhakhini tomar buk-dala rag-ragga alo
Tumi totodinoi
Jachachila pram more totdinoi chila vikarini.
Totodinoi atotuku onadora bidroher tikto ovimana
Tobo chokha uslata jol, batha dito tobo kacha prana;
Aktu ador-kona aktuku sohagar lagi
Koto nishi-din tumi, mona koro, more pasa rohiyaso jagi
Ami chaya dakhi nai; taroi protishod
Nila buji ato dina! mittha diya more jine
Opoman faki diya koritaso more shas-rode!
Ajj ami moronar buk thaka kadi -
Okoruna! pran niya aki mitha okorun khala!
Ato valobese sase ato obohela
Kamona hanita paro, nari!

A agat puruser,
Hanita a nirmom agat, janitam mora sudu purusarai pari.
Vabitam, Daghin Okologko kumarir dan,
Akti nimesh majah chirotora apnara rikto kori diya
Mon-pran lova oboshan.

Vul, taha vul,
Bayu sudu fotai kolika, oli asa hora nai ful!
Bayu boli, tar tora prem nohe priya!
Oli sudu jane valo kamna dolita hoy ful koli-hiya!

Pothik-dokhina-bayu ami cholilam bosontar sashe
Mrithuhin dibaratri nahi jana deshe!
Bidayer bela more khona khona otha buke onondassru vori
Koto sukhi ami ajj sai kotha somri.
Ami na basita valo tumi aga basecila valo
Kumari buker tobo sob snigdho rag-ragga alo
Prothom poriya chilo more buke mukhe -
Vukarir vagga buka puloker ragga ban dake jai ajj sai sukhe.
Sai proti, sai ragga suk-sriti somri
Mona hoy a jibon a jonom donno holo- ami ajj tripto hoya mori!
Na-chahita basecila valo more tumi-sudu tumi,
Sai sukhe mrithu krisno Adhor voriya
Ajj ami sotobar kora tobo priya name chumi.

More mona pora 
Akoda nishita jodi priyo
Ghumaya kaharo buka okarona buke batha kora,
Mone koro moriyasa, giyasa bipod!
Ar kovu asiba na,
Ugro sukhe kehu tobo chumita o-pod-koknod.
Moriyasa-osanto otripto chiro-sartho por lovi, -
Omor hoiya asa- roba chirodin,
Tobo prama mritujoyi
Batha-bisha nilkontho kobi!

     

Featured Artist

Featured Artist

Jeanne Fiedler
Writing

Publishing Books
Selling handcrafts
Learning to play the harmonica

Registered Users